YouTubeTips And Tricks

মোবাইল দিয়ে কোয়ালিটিফুল ভিডিও বানান | Create videos like Professional YouTuber with mobile.

YouTube Video বানানো খুব একটা কঠিন কাজ না আবার কঠিন কাজ ও বটে, কারণ ভালো কিছু করার জন্য ভালো কিছুর প্রয়োজন হয়। আপনার হাতে থাকা মোবাইলের মাধ্যমে YouTube Video তৈরি করতে পারবেন খুব সহজে।

আজকে আমরা ইউটিউব ভিডিও তৈরি করার জন্য কি লাগবে, কি কি প্রয়োজন হবে সব ধরনের গুরুত্বপূর্ণ Tips and Tricks আপনাদের সাথে শেয়ার করবো। তাহলে আপনার শিখতে পারবেন কিভাবে YouTube Video বানাতে হয়। একজন প্রফেশনাল ইউটিউবার এর মতো মোবাইল দিয়ে ভিডিও বানাতে কি কি লাগবে সকল ধরনের গাইড এই পোস্টটি পড়লে জানতে পারবেন।

ভিডিও বানানোর জন্য ৫ টি বিষয় এর প্রতি গুরুত্ব দিতে হবে। তা না হলে আপনার ভিডিও কোয়ালিটি ভালো হবে নাহ আর আপনি ইউটিউবে ভালো কিছু করতে পারবেন বলে মনে হচ্ছে নাহ, একটি ভিডিও ভাইরাল করার জন্য প্রয়োজন হবে কোয়ালিটি ভাবে ভিডিও তৈরী করা। ইউটিউবে ভালো ক্যারিয়ার গড়ার জন্য অবশ্যই পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়তে হবে।

শুরুতে ভিডিও বানানোর জন্য আপনার অনেকে গুলো ভালো কন্টেন্ট এর প্রয়োজন হবে। কন্টেন্ট হচ্ছে ভিডিও এর প্রথম চাবিকাঠি, যে খুটির উপর ভিত্তি করে আপনার ইউটিউব ক্যারিয়ার শুরু হবে। যদি ভালো কন্টেন্ট নিয়ে কাজ করতে পারেন তাহলো আপনার ভিডিওতে ভিউস (YouTube Video Views) বেশি আসবে, মনে রাখবেন ভিডিওতে বেশি ভিউস নিয়ে আসার জন্য কনটেন্ট সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ। কনটেন্ট ভালো হলে বেশি ভিউজ আসবে এবং বেশি ভিউজ হলে চ্যানেল খুব তাড়াতাড়ি রেংক (Rank) করবে ।

এরপর থাকতে হবে ভালো মানের সাউন্ড কোয়ালিটি। ভিডিও সুন্দর করে তোলার জন্য সাউন্ড এর কোন বিকল্প নেই। মনে করেন একজন লোক একটি কথা বলছে আপনি আশেপাশের সাউন্ড এর কারনে বুঝতে পারতেছেন নাহ তাহলে কি সেই মানুষকে আপনি support করবেন? মনে হয় নাহ যে আপনি তাকে সাপোর্ট করবেন। তাই আপনার ভিডিও এর সাউন্ড কোয়ালিটি যদি মানুষের ভালো নাহ লাগে তাহলে আপনিও কারো support পাবেন নাহ। সাউন্ড কোয়ালিটি ভালো করার জন্য বাজারে কম দামে অনেক ভাল মানের মাইক্রোফোন পাওয়া যায়। কম বাজেটের একটি মাইক্রোফোন কিনে নিতে পারেন।

এরপর তিন নাম্বার এর প্রয়োজন হবে। একটি ভিডিও কালার ফুল করার জন্য ভালো মানের লাইট ব্যবহার করতে পারেন, দামি লাইটের প্রয়োজন নেই একটি Ring Light দিয়ে শুরু করতে পারেন। আপনার কাছে যদি টাকা থাকে তাহলে কম দামের মধ্যে আরও ভালো কিছু লাইট কিনে নিতে পারেন। যেগুলো আপনার রুম কে আলোকিত করবে, তাহলে দেখতে পাবেন ভিডিও কোয়ালিটি অনেক ভালো হবে, মানুষ আপনার ভিডিও পছন্দ করবে। ভিডিও করার সময় মোবাইল ধরে রাখার জন্য একটি  ট্রাইপড ব্যবহার করতে হবে, ট্রাইপড ব্যবহার নাহ করলে ভিডিও নাড়াচাড়া টাইপের একটা ভাব আসবে। তাই ভিডিও কোয়ালিটি সুন্দর করার জন্য চার নাম্বার গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ট্রাইপড।

৫ নাম্বারে আছে ভিডিও editing। ভিডিও তৈরী করার পর ভালোভাবে Edit করতে হবে, কারণ ভিডিও Editing যদি সুন্দর না হয় তাহলে মানুষ আপনার ভিডিও দেখতে চাইবে না। সুন্দর করে ভিডিও তৈরী করে এডিট করতে পারলে, তাহলে আপনি ইউটিউবে ভালো কিছু করতে পারবেন। ভিডিও যতো ভালোভাবে edit করতে পারবেন দেখতে ততোধিক ভালো লাগবে। মোবাইল দিয়ে ভিডিও এডিটিং করার জন্য ভালো মানের অনেক Editing Software রয়েছে এবং মোবাইল আপ্পস রয়েছে।

  • KineMaster
  • Filmora 
  • Power Detractor
  • ClipCut

এই apps গুলো ছাড়া আরো অনেক গুলো Apps আছে ঐ আপ্পস ব্যবহার করে আপনার ভালো মানের ভিডিও ইডিটং করা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button